• Home
  • Article Details

সাক্ষাৎকারে যা মনে রাখলে ভালো

Jul 7, 2018

Share on

Article image

চাকরি পাওয়া মোটেই হাতের মোয়া নয়। মেধা ও সনদ অনুকূলে থাকলেও অনেক সময় সামান্য কিছু বিষয়ে অজ্ঞতার জন্য সাক্ষাৎকার পর্বেই ফসকে যেতে পারে কাঙ্খিত চাকরিটি। এ জন্য সাক্ষাৎকার নিয়ে চাকরিপ্রার্থীকে আলাদা প্রস্তুতির পাশাপাশি সতর্কও থাকতে হয়।

চাকরির সাক্ষাৎকারে করণীয় ও বর্জনীয় কিছু বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের ব্যবসা ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ক জনপ্রিয় লেখক, বিশ্লেষক ও বক্তা বার্নার্ড মার। এই পরামর্শগুলোকে চাকরির সাক্ষাৎ​কারের জন্য ধ্রুপদিই বলা যেতে পারে। এগুলো মনে রাখলে সাক্ষাৎকারে সহজেই মিলতে পারে সফলতা। মারের পরামর্শগুলো এখানে তুলে ধরা হলো।

সাক্ষাৎকারে যা করণীয়:

  • চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে আগেই ভালোভাবে জেনে নিন।
  • প্রত্যাশিত পদ এবং কাজ সম্পর্কে জানুন।
  • সাক্ষাৎকারে সচরাচর যেসব প্রশ্ন করা হয়, তা নিয়ে ভাবুন; সম্ভাব্য উত্তর অনুশীলন করুন।
  • প্রতিষ্ঠান ও প্রত্যাশিত পদের সঙ্গে মিল রেখে সাক্ষাৎকারের দিন পোশাক বাছাই করুন।
  • সাক্ষাৎকারে যাওয়ায় আগে চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠানের অবস্থান ও সেখানে পৌঁছানোর পথঘাট জেনে নিন।
  • সাক্ষাৎকারের দিন হাতে সময় রেখে রওনা দিন, নির্ধারিত সময়ের আগে উপস্থিত হন।
  • যাওয়ার পথে কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত কারণে বিলম্ব হলে, সাক্ষাৎকার আয়োজনের দায়িত্ব থাকা কর্মকর্তাকে ফোনে তা জানিয়ে দিন।
  • সাক্ষাৎকার পর্বে জীবনবৃত্তান্তসহ প্রয়োজনীয় সনদ ও তথ্যপ্রমাণ সঙ্গে নিতে ভুলবেন না।
  • অপেক্ষা ও সাক্ষাৎকার কক্ষে সবার সঙ্গে শান্ত, ভদ্র ও আন্তরিকভাবে কথা বলুন।
  • সাক্ষাৎকারের সময় সরাসরি দৃষ্টিবিনিময় করুন। দৃষ্টিতে থাকবে আত্মপ্রত্যয় ও নমনীয় ভাব।
  • কাঙ্ক্ষিত পদ ও প্রতিষ্ঠানের ব্যাপারে নিজের উৎসাহের বিষয়টি সাক্ষাৎকারে প্রকাশ করুন।
  • নিজের অর্জন ও দক্ষতার বিষয়ে জোর দিন।
  • প্রশ্ন অনুযায়ী সুনির্দিষ্ট ও বিস্তারিত উত্তর দিন।
  • চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার কৌশল ব্যাখ্যা করুন।
  • উত্তর দেওয়ার ক্ষেত্রে বুদ্ধিদীপ্ত হন, কিন্তু সৎ থাকুন।
  • সাক্ষাৎকারের সময় তাড়াহুড়া নয়। ধীরে চিন্তা করে শান্তভাবে উত্তর দিন।
  • প্রশ্ন না বুঝলে ‘দুঃখিত’ বলে তা আবার উল্লেখ করতে অনুরোধ করুন।
  • বেতনের ব্যাপারটি আগেই ভেবে রাখুন, বুঝেশুনে প্রত্যাশিত বেতনের অঙ্ক বলুন।
  • সাক্ষাৎকার শেষ হওয়ার অন্তত ২৪ ঘণ্টা পর কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানিয়ে একটি নোট দিতে পারেন।

সাক্ষাৎকারে যা বর্জনীয়:

  • পোশাক বাছাইয়ে সতর্ক হন। অতি উজ্জ্বল, ঝকমকে, বিচিত্র রঙের পোশাক বর্জনীয়।
  • অতিরিক্ত ও কটু সুগন্ধী ব্যবহার করবেন না। তামাকজাতীয় পদার্থের দুর্গন্ধের ব্যাপারে ধূমপায়ীদের সতর্ক থাকতে হবে।
  • সাক্ষাৎকারে যেতে বিলম্ব কাম্য নয়।
  • চাপ ও জড়তার কারণে সব প্রস্তুতি ব্যর্থ হয়ে যেতে পারে।
  • বাবা-মা, আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু কাউকে সঙ্গে নেবেন না।
  • চিউইংগাম জাতীয় কিছু মুখে নেবেন না। সঙ্গে বাহ্যিক জিনিসপত্র না নেওয়াই ভালো।
  • সাক্ষাৎকারে কৌতুক বা কথার কথা বলবেন না।
  • বিতর্কিত বিষয় না তোলাই ভালো।
  • কথাবার্তা ও যুক্তিতে আক্রমণাত্মক হবেন না।
  • অতি আত্মবিশ্বাস সর্বনাশ ডেকে আনে।
  • হতাশা ও নেতিবাচক কথা বলবেন না।
  • বর্তমান বা পুরোনো চাকরি নিয়ে নেতিবাচক কথা বলবেন না।
  • কোনোভাবেই মিথ্যা বলা যাবে না।
  • ওজর দেবেন না।
  • প্রশ্ন না বুঝে উত্তর দেবেন না।
  • শুধু ‘হ্যাঁ-না’ উত্তর দেবেন না।
  • ব্যক্তিগত বা পারিবারিক সমস্যার প্রসঙ্গ টানবেন না।
  • সাক্ষাৎকারকক্ষে মোবাইল ফোন ব্যবহার একেবারে বর্জনীয়।
  • চাকরি পাওয়ার আগেই নিজ থেকে বেতন-ভাতার প্রসঙ্গ তুলবেন না।
  • সাক্ষাৎকার শেষ হতে না হতেই ফোন দিয়ে ফল জানার চেষ্টা করবেন না। বারবার ফোন দেওয়াও উচিত না।

সূত্রঃ প্রথম আলো